বুধবার, ২৯ মে, ২০২৪, ১৫ জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১, ২০ জিলকদ, ১৪৪৫

শরীয়তপুরে এলজিইডি’র অধীনে গ্রামীণ সড়ক নির্মাণে ব্যাপক অনিয়ম-দুর্নীতির অভিযোগ

 

শরীয়তপুরে ভেদরগঞ্জ উপজেলায় স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের আওতাধীন উপজেলা, ইউনিয়ন ও গ্রামীণ সড়ক নির্মাণে ব্যাপক অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ ওঠেছে। উন্নয়নমূলক কাজের বিপরীতে নির্ধারিত হারে কমিশন বাণিজ্যের অভিযোগ ওঠেছে খোদ ভেদরগঞ্জ উপজেলা প্রকৌশলী অনুপম চক্রবর্তীর বিরুদ্ধে। স্থানীয় লোকজন উন্নয়নমূলক কাজের নি¤œমান সম্পর্কে উপজেলা প্রকৌশলীকে অবহিত করলেও তিনি তাতে কোন পদক্ষেপ গ্রহণ না করে উল্টো ঠিকাদারদের পক্ষেই সাপাই গেয়ে থাকেন বলে অভিযোগ করেছেন স্থানীয়রা। সড়ক নির্মাণ ও মেরামতে অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ উপাদান বিটুমিনসহ নি¤œমানের নির্মাণ সামগ্রী ব্যবহার, মূলঠিকাদারের পরিবর্তে অদক্ষ ঠিকাদার দিয়ে কাজ করানো, রাস্তা তৈরির সময় ঠিকাদারের কাজের যথাযথভাবে তদারকি না করা আর রক্ষণাবেক্ষণের অভাবে সড়ক নির্মাণ বা মেরামতের ২/৩ মাস যেতে না যেতেই তা নষ্ট বা যানবাহন চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়ছে। ফলে সরকারি বরাদ্দে অবমূল্যায়নের ফলে দুর্ভোগের শিকার হতে হয় এলাকাবাসীদের।
সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, ভেদরগঞ্জ উপজেলার পম লাকার্তা বাবুল খার দীঘির ব্রিজ থেকে সদর উপজেলার আটং বড় রাস্তা পযর্ন্ত প্রায় পৌনে ৩ কিলোমিটার রাস্তার সংস্কার কাজ করছেন আব্দুল্লাহ এন্টারপ্রাইজের স্বত্তাধীকার মাদারীপুরের ঠিকাদার আক্তার হোসেন বাবুল। এই পৌনে তিন কিলোমিটার রাস্তার সংস্কার কাজে ব্যয় ধরা হয়েছে প্রায় ১ কোটি ৪৫ লাখ টাকা। সরেজমিন গিয়ে দেখা যায়, সড়কের কাজে ব্যাপক অনিয়ম-দুর্নীতি করা হচ্ছে। স্থানীয় বাসিন্দা রুহুল আমীন, শাহিন, আবুল, বাবুল, জাহাঙ্গীর হোসেন সরদারসহ অনেকেই অভিযোগ করে বলেন, ঠিকাদারকে টেন্ডারের চুক্তি অনুযায়ী কাজ করার কথা বললেও কোনো তোয়াক্কা না করে অনুমোদনবিহীন নি¤œমানের বালি, ইট-সুরকি ও পাথর দিয়ে কাজ সম্পূর্ণ করার পাঁয়তারা চালিয়ে যাচ্ছে। রাস্তার দু’পাশ বাড়ানো কথা থাকলেও তা যথাযথ বাড়ানো হয়নি। রাস্তা টিকে থাকার জন্য দু’পাশে যে ইটের এজেন্ট ব্যবহার করা হয়েছে তা অত্যন্ত নি¤œমানের। বালুর পরিবর্তে কাদামাটি দিয়ে তার ওপর নি¤œমানের পুরোনো ইটের খোয়া ছিটিয়ে দেওয়া হচ্ছে। ইটের খোয়া এতোই নি¤œমানের ব্যবহার করা হচ্ছে যা ইটে পা দিয়ে চাপ দিলে তা ভেঙে যাচ্ছে। সিডিউল মোতাবেক নির্ধারিত পরিমাপের চেয়ে বিভিন্ন স্থানে রাস্তা সরু করা হয়েছে। রাস্তার বিভিন্ন জায়গায় পুরোনো সড়কের পিচ না উঠিয়ে তার উপর দিয়ে পিচ ঢালাইয়ের পাঁয়তারা চলছে। গত প্রায় ৩ মাস ধরে বিভিণœ অংশে রাস্তা খুঁড়ে রাখায় ধুলাবালিতে একাকার হচ্ছে এ সড়কে চলাচলকারী যাত্রীরা। সংস্কারের কাজ চলছে কচ্ছপ গতিতে। স্থানীয় লোকজন এ বিষয়ে ঠিকাদারের নিকট আপত্তি জানালেও সে কোন কর্ণপাত করছে না বলে অভিযোগ করেছেন তারা। স্থানীয়রা বাবুল হোসেন, মিজানুর রহমান বলেন, নি¤œমানের ইট-সুরকি, পাথর ও বিটুমিন ব্যবহার করে এ রাস্তা মেরামত করার ফলে কয়েক মাস যেতে না যেতেই তা পূর্বের অবস্থায় ফিরে আসে। ফলে রাস্তার সুফল পাচ্ছে না এ রুটে চলাচলকারী যাত্রী সাধারণ। এ কাজে তদারকির দায়িত্বে রয়েছেন উপ-সহকারী প্রকৌশলী সিদ্দিকুর রহমান। স্থানীয় লোকজন অভিযোগ করেছেন, রাস্তার কাজে উপজেলা স্থানীয় সরকার প্রকৗশল অধিদপ্তরের কাউকে এসে তদারকি করতে দেখা যায়নি। অভিযুক্ত ঠিকাদার আক্তার হোসেন বাবুল কাজের অনিয়মের বিষয় অস্বীকার করে বলেন, আমার কাজ ভালো হচ্ছে, আমি কোন খারাপ মাল দিয়ে কাজ করি না। এ কাজ এলজিইডিই বুঝে নেবে। আপনাদের সমস্যা কি?
উপ-সহকারী প্রকৌশলী সিদ্দিকুর রহমান বলেন, এ ধরনের অভিযোগ ঠিক না। কাজের মান খুবই ভাল। কাজে সাইডে আপনাদের নিয়ে যাবো।
উপজেলা প্রকৌশলী অনুপম চক্রবর্তী কমিশন বাণিজ্যের কথা অস্বীকার করে বলেন, রাস্তার পুরাতন ইট ব্যবহার করার বিষয়টি সিডিউলে ধরা হয়েছে। আমাদের লোকজন তদারকি করছে।