বুধবার, ৬ ডিসেম্বর, ২০২৩, ২১ অগ্রহায়ণ, ১৪৩০, ২১ জমাদিউল আউয়াল, ১৪৪৫

শরীয়তপুর আদালতে প্রক্সি দিতে এসে যুবক কারগারে।

গ্রেফতারী পরোয়ানা ভুক্ত পলাতক আসামীর পক্ষে আদালতে প্রক্সি দিতে আসেন শরীয়তপুর জেলার জাজিরা উপজেলার মনির হোসেন বেপারী (২০) নামের এক যুবক। বিষয়টি আদালত জানতে পেরে ঐ যুবকে ২ দিনের সশ্রম কারাদন্ড দিয়ে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।
আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে শরীয়তপুরের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্যাট আমলী আদালত জাজিরা অঞ্চল এর বিচারক মেসবাহ উদ্দিন খান এ আদেশ প্রদান করেন। মনির হোসেন বেপারী (২০) জাজিরা উপজেলার জাজিরা ইউনিয়নের গফুর মোল্লা কান্দি গ্রামের ইন্তাজ উদ্দিন বেপারী ছেলে।
মামলা সুত্রে জানা যায়, জাজিরা থানার ২০২২ সালের জুলাই মাসের একটি মারামারি ঘটনায় একই উপজেলার উত্তর খোষাল সিকদারের কান্দি গ্রামের তোফাজ্জেল বেপারীর স্ত্রী মাকসুদা বেগম বাদী ৫৩ জনকে আসামী করে মামলা দায়ের করে। সে মামলার ১৯ নাম্বার পলাতক আসামী আজিজুল হক বেপারীর পক্ষে আজ বৃহস্পতিবার প্রক্সি দিতে আদালতে আসে মনির হোসেন বেপারী। তখন শরীয়তপুরের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্যাট আমলী আদালত জাজিরা অঞ্চল এর বিচারক মেসবাহ উদ্দিন খান এর সন্দেহ হলে তিনি প্রক্সি দিতে আসা মনির হোসেনকে জেরা করেন। তখন মনির হোসেন তার দোষ স্বীকার করায় বিচারক বাদী হয়ে ২০৫ ধারায় একটি মামলা করেন। সে মামলায় তাকে ২ দিনের সশ্রম কারাদন্ডের আদেশ দেয় আদালত।
শরীয়তপুরের কোর্ট ইন্সিপেক্টর (জি আর ও) মেসবাহ উদ্দিন বলেন, জাজিরা থানার একটি মারামারি মামলার ১৯ নাম্বার আসামী আজিজুলের পরিবর্তে মনির হোসেন বেপারী (২০) আজ কোটে প্রক্সি দিতে আসলে বিচারকের সন্দেহ হয়। পরে বিচারক বাদী হয়ে একটি মামলা দায়ের করেন। সে মামলায় আদালত মনির হোসেনকে ২ দিনের সশ্রম কারাদন্ডের আদেশ দিয়ে কারাগারে প্রেরনের নির্দেশ দেন। ৫ জন আসামী অনুপস্থিতে আদালতে হাজিরা দেখানো হয়। তাদের বিরুদ্ধে গ্রেপতার পরোয়ারা জারি করেন।