বুধবার, ২৯ মে, ২০২৪, ১৫ জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১, ২০ জিলকদ, ১৪৪৫

শরীয়তপুরে ফিলিং স্টেশনের পাশে ঝালাই কারখানা, দূর্ঘটনার আশংকা

শরীয়তপুর জেলা শহরের বাঘিয়া এলাকায় গ্লোরী ফিলিং স্টেশন অবস্থিত। তার দক্ষিন পাশে দেয়াল ঘেঁষে স্থানীয় বিল্লাল পাটোয়ারী কোন নিয়ম নীতির তোয়াক্কা না করে অন্যায় ভাবে গড়ে তুলেছে ওয়েল্ডিং কারখানা (ঝালাই) কারখানা। এতে করে ওয়েল্ডিং মেশিনের স্ফুলিংগের মাধ্যমে গ্লোরী ফিলিং ষ্টেশনের মারতœক অগ্নিকান্ড ঘটতে পারে বলে স্থানীয় লোকজন। এ ব্যাপরে পাংল মডেল থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।
শরীয়তপুরের গ্লোরী ফিলিং ষ্টেশনের ম্যানেজার আনোয়ার হোসেন ও স্থানীয় সুত্রে জানা যায়, শরীয়তপুর জেলা শহরের বাগিয়া এলাকায় প্রায় ২২ বছর পূর্বে গ্লোরী ফিলিং ষ্টেশনটি স্থাপিত হয়। সে থেকে তারা সেখানে ডিজেল, পেট্্রুল ও অকটেন বিক্রি করে আসছেন। গত কয়েক মাস ধরে তার দক্ষিন পাশে দেয়াল গেষে স্থানীয় বিল্লাল পাটোয়ারী কোন নিয়ম নীতির তোয়াক্কা না করে অন্যায়ভাবে গড়ে তুলেছে ওয়েল্ডিং কারখানা (ঝালাই) কারখানা। সেখানে ওয়েন্ডি করে বাস ট্রেকের বডি নির্মান করা হচ্ছে। এতে করে ওয়েল্ডিং মেশিনের স্ফুলিংগের মাধ্যমে গ্লোরী ফিলিং ষ্টেশনের মারতœক অগ্নিকান্ড ঘটতে পারে। বার বার তাকে বলার পরও তিনি কোন কিছুতেই তার ঝালাই কারখানাটি বন্ধ করছে না। তাই গ্লোরী ফিলিং স্টেশনের ম্যানেজার বাদী হয়ে পালং মডেল থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছে।
বিল্লাল পাটোয়ারী বলেন, ফিলিং স্টেশন থেকে প্রায় ৩০ ফুট দুরে আমার ওয়েল্ডিং কারখানাটি স্থাপন করা হয়। এতে কোন রকম দুর্ঘটনা আশংকা নাই।
শরীয়তপুর সুপার সার্ভিসের সভাপতি ফারুক আহাম্মেদ তালুকদার বলেন, ওয়েল্ডিং কারখানাটি বিল্লাল পাটোয়ারীর ব্যক্তিগত বিষয়। এটি আমার আমাদের কোন বিষয় না।
শরীয়তপুর ফায়ার সার্ভিস স্টেশনের ফায়ারম্যান রিয়াজ মোল্ল্যা বলেন, পেট্রুল পাম্পের কাছাকাছি ওয়েন্ডিং করখানা স্থাপন খুবই ঝুকিপূর্ন। আমি বিষয়টি উধ্বর্তন কর্তৃপক্ষকে জানাবো।
পালং মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোঃ আক্তার হোসেন বলেন, পেট্রুল পাম্পের সাথে ওয়েল্ডিং কারখানা স্থাপন সত্যি আশংকা জনক। আমরা অচিরেই ব্যাবস্থা নেব।