বুধবার, ২৯ মে, ২০২৪, ১৫ জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১, ২০ জিলকদ, ১৪৪৫

চট্টগ্রাম-৮ উপনির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেলেন নোমান

মোছলেম উদ্দিনের মৃত্যুতে শূন্য চট্টগ্রাম-৮ আসনে উপনির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হতে আব্দুচ ছালামসহ ২৭ জন ছিলেন প্রত্যাশায়। শেখ হাসিনা নেতৃত্বাধীন আওয়ামী লীগের সংসদীয় মনোনয়ন বোর্ড তাদের মধ্য থেকে প্রার্থী হিসেবে বেছে নিয়েছে চট্টগ্রাম নগর কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক নোমান আল মাহমুদকে।

শনিবার সকালে গণভবনে বোর্ডের বৈঠকে চট্টগ্রাম-৮ আসনের মনোনয়ন চূড়ান্ত করা হয় বলে ক্ষমতাসীন দলটির দপ্তর সম্পাদক বিপ্লব বড়ুয়া শরীয়তপুর চোখকে জানিয়েছেন।

তিনি বলেন, “বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সংসদীয় মনোনয়ন বোর্ডের সভাপতি ও বঙ্গবন্ধুকন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে মনোনয়ন বোর্ডের সভায় চট্টগ্রাম-৮ আসনের প্রার্থী হিসেবে নোমান আল মাহমুদকে চূড়ান্ত করা হয়েছে।”

নোমান চট্টগ্রাম নগর যুবলীগের সাবেক সভাপতি এবং চট্টগ্রাম শহর ছাত্রলীগের সাবেক শিক্ষা ও পাঠাগার বিষয়ক সম্পাদক। প্রায় পাঁচ দশক ধরে তিনি ছাত্রলীগ, যুবলীগ ও আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে সম্পৃক্ত।

চট্টগ্রাম-৮ আসনের প্রয়াত দুই সংসদ সদস্য মইন উদ্দিন খান বাদল এবং মোছলেম উদ্দিন আহমদের নির্বাচন পরিচালনা কমিটির সদস্য সচিব ছিলেন নোমান।

মনোনয়ন পাওয়ার তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় নোমান  বলেন, “এই মাত্র আমি খবর পেয়েছি। এটা তৃণমূলের কর্মীদের প্রাপ্তি। তৃণমূলের নেতাকর্মীদের প্রত্যাশার মূল্যায়ন করেছেন আমার নেত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা। আমি কৃতজ্ঞ।”

চট্টগ্রাম নগরীর পাঁচলাইশ, চান্দগাঁও, মোহরা, ষোলশহর এবং বোয়ালখালী উপজেলা নিয়ে গঠিত সংসদীয় আসন চট্টগ্রাম-৮।

এ আসনের দুই বারের এমপি জাসদের নেতা মইন উদ্দিন খান বাদল ২০১৯ সালের ৭ নভেম্বর মারা যান। বাদল জোট শরিক আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতীকে ভোট করতেন।

বাদলের ‍মৃত্যুতে আসনটি শূন্য হলে ২০২০ সালের ১৩ জানুয়ারির উপনির্বাচনে আওয়ামী লীগ নেতা মোছলেম উদ্দিন সংসদ সদস্য হন।

ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে গত ৫ ফেব্রুয়ারি মোছলেম উদ্দিন মারা যাওয়ার পর উপ-নির্বাচন ঘিরে আলোচনায় আসে সাবেক সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন এবং সাবেক সিডিএ চেয়ারম্যান আবদুচ ছালামের নাম। নাছির নগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং ছালাম কোষাধ্যক্ষ।

চট্টগ্রাম-৮: মোছলেমের অবর্তমানে আলোচনায় নাছির-ছালাম

তবে ছালাম দলীয় মনোনয়ন ফরম নিলেও নাছির নেননি। এছাড়া সাবেক সংসদ সদস্য মইন উদ্দিন খান বাদলের স্ত্রী সেলিনা খান, মোছলেম উদ্দিন আহমদের স্ত্রী শিরিন আহমেদ, দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক আবদুল কাদের সুজন, সাবেক রাষ্ট্রদূত এস এম আবুল কালামসহ ২৭ জন দলের মনোনয়ন নিয়েছিলেন।

তাদের মধ্য থেকে নোমান নৌকা প্রতীকে ভোট করতে যাচ্ছেন। তিনি নির্বাচিত হলে এক বছরের কম সময় দায়িত্বে থাকবেন, কেননা তার আগেই পরবর্তী সংসদ নির্বাচন হবে।

আগামী ২৭ এপ্রিল এই উপ-নির্বাচনে ভোটগ্রহণ হবে। ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী, মনোনয়নপত্র দাখিল করা যাবে ২৭ মার্চ পর্যন্ত। মনোনয়নপত্র বাছাই হবে ২৯ মার্চ। মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করা যাবে ৫ এপ্রিল। এরপর প্রতীক বরাদ্দ করা হবে ৬ এপ্রিল।

নগরীর পাঁচলাইশ, চান্দগাঁও, মোহরা, পূর্ব ও পশ্চিম ষোলশহর এবং বোয়ালখালী পৌরসভা ও বোয়ালখালী উপজেলার ৯টি ইউনিয়ন সারোয়াতলী, পশ্চিম গোমদণ্ডী, পূর্ব গোমদণ্ডী, কধুরখীল, শাকপুরা, পোপাদিয়া, চরণদ্বীপ, আমুচিয়া ও আহল্লা করলডেঙ্গা নিয়ে গঠিত চট্টগ্রাম-৮ (বোয়ালখালী-পাঁচলাইশ-চান্দগাঁও) আসনের আলোচিত বিষয় কালুরঘাট সেতু পুনর্নির্মাণ।

বোয়ালখালীর বাসিন্দারা দীর্ঘদিন ধরে নতুন সেতু নির্মাণের দাবি জানিয়ে আসছেন। প্রয়াত সংসদ সদস্য বাদল সেতু নির্মাণের দাবিতে সংসদে এবং সংসদের বাইরে ছিলেন সোচ্চার। সদ্য প্রয়াত মোছলেম উদ্দিন আহমদও সেতু নির্মাণ দেখে যেতে পারেননি।

এবারও উপ-নির্বাচনে এই সেতুর বিষয়টি ‍ঘুরেফিরে মূল আলোচনায় থাকবে বলে মনে করেন স্থানীয় রাজনীতিবিদ ও এলাকার বাসিন্দারা।