মঙ্গলবার, ২৩ এপ্রিল, ২০২৪, ১০ বৈশাখ, ১৪৩১, ১৩ শাওয়াল, ১৪৪৫

বাঘের মুখ থেকে বড় ভাইকে যেভাবে বাঁচালেন ছোট ভাই

 

সুন্দরবনে অবৈধভাবে মধু আহরণ করতে যান সাতক্ষীরার শ্যামনগর উপজেলার ছোট ভেটখালী গ্রামের ওয়াজেদ আলী ও তার ছোট ভাই লিয়াকত হোসেন। মঙ্গলবার সকাল ৯টার দিকে বাঘের আক্রমণের শিকার হন ওয়াজেদ। এ সময় লিয়াকত লাঠি নিয়ে সামনে গেলে বাঘটি তার ভাইকে ছেড়ে চলে যায়।

বুধবার ভোর ৫টায় আহত ওয়াজেদ আলীকে নিয়ে লোকালয়ে ফিরেছেন তার ছোট ভাই লিয়াকত হোসেন। তারা সাতক্ষীরার শ্যামনগর উপজেলার ছোট ভেটখালী গ্রামের মৃত জব্বার আলী গাজীর ছেলে।

ঘটনা সূত্রে জানা যায়, মঙ্গলবার সকাল ৯টার দিকে সুন্দরবন সাতক্ষীরা রেঞ্জের কৈখালী স্টেশনের নিয়ন্ত্রণাধীন কাছিকাটা দাইরগাং এলাকায় বাঘের আক্রমণের শিকার হন ওয়াজেদ।

ছোট ভাই লিয়াকত হোসেন বলেন, সুন্দরবন সাতক্ষীরা রেঞ্জের কাছিকাটার দাইরগাং এলাকায় হঠাৎ বাঘ তার ভাইয়ের ওপর আক্রমণ করে। বাঘ ও ভাই একই সঙ্গে নদীতে পড়ে গেলে আমি নৌকায় থাকা লাঠি নিয়ে সামনে আসি। বাঘ আমার দিকে তাকিয়ে ভাইকে ফেলে লাফ দিয়ে পালিয়ে যায়। এ সময় তার ভাইয়ের পিঠ, ঘাড় ও মাথার সামান্য অংশ আক্রান্ত হয়। পরে আমি ভাইকে উদ্ধার করে লোকালয়ের উদ্দেশ্যে রওনা হই। বর্তমানে তাকে বাড়িতে রেখেই চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।

কিন্তু বন বিভাগের একটি সূত্র বলছে, ওয়াজেদ আলী ও তার সহযোগীরা মোট সাতজন অবৈধভাবে মধু আহরণের জন্য পার্শ্ববর্তী দেশের সুন্দরবনে গিয়েছিল। সূত্রগুলো বলছে যেহেতু মঙ্গলবার সকাল ৯টায় আক্রমণের ঘটনা ঘটেছে যদি ঘটনাটি কাছিকাটায় ঘটতো তাহলে ১২টা থেকে ১টার মধ্যে আহত ওয়াজেদ আলীকে লোকালয়ে নিয়ে আসা সম্ভবত হতো। যেখানে কাছিকাটা থেকে সর্বোচ্চ তিন থেকে চার ঘণ্টায় লোকালয়ে পৌঁছানো যায়। সেখানে তারা বাড়ি আসতে সময় লেগেছে ২০ ঘণ্টা। এখানেই সন্দেহের তীর আরও বেশি মজবুত হয়ে দাঁড়িয়েছে বলে জানান বন বিভাগের কর্মকর্তারা।

পশ্চিম সুন্দরবনের কৈখালী রেঞ্জের স্টেশন কর্মকর্তা স্বাদ আল জামি বলেন, বাঘের আক্রমণে আহত ওয়াজেদ আলী সুন্দরবনে অবৈধভাবে প্রবেশ করেছে এটা নিশ্চিত। তবে তিনি আক্রান্ত হয়েছেন এটা সত্য। বন বিভাগ এ বিষয়ে আরও খোঁজখবর নিচ্ছে, রহস্য উদঘাটনের চেষ্টা চালাচ্ছে। তবে একটা জিনিস পরিষ্কার কাছিকাটা থেকে লোকালয় আসতে ২০ ঘণ্টা সময় লাগার কথা না।

তিনি বলেন, সচেতন মহলের ধারণা আহত আব্দুল ওয়াজেদ অবৈধভাবে মধু আহরণের জন্য ভারতীয় সুন্দরবনে অনুপ্রবেশ করেছিলেন আর সেখানেই এ দুর্ঘটনা ঘটেছে; যার ফলে তাকে উদ্ধার করে লোকালয়ে ফিরিয়ে নিয়ে আসতে এই দীর্ঘক্ষণ সময় লেগেছে।

পশ্চিম সুন্দরবন সাতক্ষীরা রেঞ্জের সহকারী বন সংরক্ষক এমকেএম ইকবাল হোছাইন চৌধুরী বলেন, ভোরে দুর্ঘটনার সংবাদটি পেয়েছি। তবে দুর্ঘটনাটি বাংলাদেশি সীমানায় ঘটেনি বলে আমি অনেকটা নিশ্চিত। আর যে ব্যক্তি আক্রমণের শিকার হয়েছেন তার নাম পারমিশনে নেই। আক্রান্ত ব্যক্তি ও তার সঙ্গে থাকা ব্যক্তিদের নিয়ে যেখানে ঘটনাটি ঘটেছে ওই স্থানের সুরতহাল রিপোর্ট তৈরি করা হবে। সুরতহাল রিপোর্ট শেষ হলে বিষয়টা সম্পূর্ণ পরিষ্কার হয়ে যাবে। অবৈধ অনুপ্রবেশের দায়ে বন বিভাগ তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে পারে বলেও তিনি জানান।