বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন, ২০২৪, ৩০ জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১, ৬ জিলহজ, ১৪৪৫

জাজিরার পদ্মাসেতু এলাকায় বাস দূর্ঘটনায় ১ জন নিহত এবং ৬ জন আহত

শরীয়তপুরের জাজিরার নাওডোবা চত্বর এলাকায় পদ্মাসেতু হয়ে ভাঙ্গামূখি এক্সপ্রেসওয়েতে একটি বাস দূর্ঘটনার স্বীকার হয়ে একজনের প্রাণহানি হয়েছে। রবিবার (১৬-এপ্রিল) সকালে উক্ত দূর্ঘটনাটি ঘটে। এতে অন্তত ছয়জন আহত হয়েছেন বলে জানা গিয়েছে। আহতদের কয়েকজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। যার মধ্যে ৯৯ ব্রিগেড জাজিরা শেখ রাসেল ক্যান্টনমেন্টে কর্মরত সাব্বির নামে এক সৈনিকের মাহিমা(৯) নামে এক মেয়ে রয়েছেন।

সেনাসদস্যের আহত মেয়ে মাহিমাকে সেনাবাহিনীর এ্যাম্বুলেন্সে করে এমডিএস-এ এবং বাকিদের শিবচর ও ঢাকার বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য নিয়ে যাওয়া হয়েছে। নিহত ব্যাক্তির নাম লাক্কু মাদবর(৩২)। তিনি জাজিরার পশ্চিম নাওডোবা ইউনিয়নের মেছের আলী মুন্সির কান্দি এলাকার আ: মালেক মাদবরের ছেলে। তিনি পেশায় একজন অটোচালক ছিলেন। রাস্তার পাশে অটো নিয়ে দাঁড়িয়ে থাকলে হঠাৎ বাসটি নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে তিনিসহ সেখানে থাকা পথচারীদের উপর উঠে যায়।

পদ্মাসেতু দক্ষিণ থানা পুলিশ সূত্রে জানা যায়, ঢাকা থেকে ভাঙ্গার উদ্দেশ্যে ছেড়ে আসা বসুমতী পরিবহনের বাসটি পদ্মাসেতু পার হলে প্রচন্ড গতিতে থাকা অবস্থায় নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে নাওডোবা গোলচত্বর এলাকায় পথচারীদের উপর উঠে যায়। এতে ঘটনাস্থলেই অটোচালক লাক্কু মাদবর মারা যায়। তাছাড়া ৬ জন আহয় যার মধ্যে কয়েকজনের অবস্থা অত্যন্ত আশঙ্কাজনক।

এদিকে নিহত লাক্কু মাদবরের পরিবারকে লাশের সৎকার কাজে সহযোগিতা হিসেবে জাজিরা উপজেলা প্রশাসনের তাৎক্ষণিক সহায়তা তহবিল থেকে  নগদ ২৫ হাজার টাকা অর্থ সহায়তা প্রদান করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন জাজিরা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো: কামরুল হাসান সোহেল।

ঘটনার সাথে সাথেই খবর পেয়ে জাজিরা ফায়ার সার্ভিস, পদ্মাসেতু দক্ষিণ থানা পুলিশ, শিবচর হাইওয়ে থানা পুলিশ এবং শেখ রাসেল ক্যান্টনমেন্টের সেনাসদস্যরা যৌথভাবে উদ্ধার কাজে অংশগ্রহণ করে। উদ্ধারকাজ শেষে আহতদের চিকিৎসার জন্য নেয়া হয় এবং নিহত লাক্কু মাদবরের লাশ পদ্মাসেতু দক্ষিণ থানায় নিয়ে যাওয়া হয়। সেখান থেকে জাজিরা উপজেলা স্বাস্থ্যকমপ্লেক্সে নিয়ে পরিবারের কাছে লাশ হস্তান্তর করা হয়।

পদ্মাসেতু দক্ষিণ থানার পুলিশ-পরিদর্শক (তদন্ত) সুরুজ উদ্দিন আহমেদ জানান, আমরা দূর্ঘটনার সাথে সাথেই ঘটনাস্থলে গিয়ে উদ্ধার কাজে অংশগ্রহণ করি। সেখান থেকে নিহত লাক্কু মাদবরের লাশ আমাদের থানায় নিয়ে এসে পরে জাজিরা উপজেলা স্বাস্থ্যকমপ্লেক্সে পাঠিয়ে দেয়া হয়। সেখান থেকেই তার পরিবারের কাছে লাশ হস্তান্তর করা হয়।

জাজিরা ফায়ার সার্ভিসের স্টেশন মাষ্টার আবুল হাশেম জানান, আমরা দূর্ঘটনার খবর পেয়ে সাথে-সাথেই ঘটনাস্থলে গিয়ে উদ্ধারকাজে অংশগ্রহণ করি। সেখানে বাসের নিচে চাপা পড়েছিলেন কয়েকজন, যার মধ্যে নিহত লাক্কু মাদবরও ছিলেন। তাদের সবাইকে আমরা বাসের নিচ থেকে বের করে আনি। পরে আহতদের চিকিৎসার জন্য বিভিন্ন জায়গায় নিয়ে যাওয়া হয়।

শিবচর হাইওয়ে থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো: আমিনুল ইসলাম জানান, ঘটনার পরে আমরা এবং সেনাবাহিনীসহ ফায়ার সার্ভিসকে সাথে নিয়ে উদ্ধারকাজ শুরু করি। দূর্ঘটনা ঘটানো বাসটিকে পদ্মাসেতু দক্ষিণ থানায় নিয়ে যাওয়া হয়েছে। আর দূর্ঘটনার সাথে-সাথেই ড্রাইভার-হেল্পার ঘটনাস্থল থেকে পালিয়ে যাওয়ায় তাদের পাওয়া যায়নি।

জাজিরা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো: কামরুল হাসান সোহেল জানান, বসুমতী পরিবহনের বাসটি পদ্মাসেতু পার হয়ে নাওডোবা চত্বরে এসে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে রাস্তার পাশে দাড়িয়ে থাকা পথচারীদের উপর উঠে যায়। আমরা খবর পেয়ে সাথে-সাথেই ঘটনাস্থলে গিয়েছি। উদ্ধারকাজ শেষে নিহত লাক্কু মাদবরের পরিবারকে মানবিক সহায়তা হিসেবে ২০ হাজার টাকা অর্থ সহায়তা প্রদান করা হয়েছে।