বুধবার, ২৯ মে, ২০২৪, ১৫ জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১, ২০ জিলকদ, ১৪৪৫

যেভাবে বিদায় জানানো হবে রাষ্ট্রপতিকে

মো. আবদুল হামিদ। ফাইল ছবি

 

বঙ্গভবনের দীর্ঘ অধ্যায় শেষ করে আজ সোমবার আনুষ্ঠানিকভাবে বিদায় নিচ্ছেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ। বঙ্গভবনে বিদায়ী রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদের শেষ কার্যদিবস ছিল গতকাল রোববার।

পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, বঙ্গভবন থেকে বেরিয়ে রাজধানীর নিকুঞ্জে নিজ বাসা ‘রাষ্ট্রপতি লজে’ উঠবেন আবদুল হামিদ। ইতোমধ্যে সেখানে তার পরিবারের প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র ও অন্যান্য সামগ্রী স্থানান্তর করা হয়েছে।

২০১৩ সালে প্রথমে অস্থায়ী রাষ্ট্রপতি এবং পরে রাষ্ট্রপতির দায়িত্ব নেন তিনি। এর পর দুই মেয়াদে বঙ্গভবনে ১০ বছরেরও বেশি সময় কেটেছে তার। প্রথমবারের মতো এমন সৌভাগ্য লাভ করা ব্যক্তিত্ব  আবদুল হামিদের আজ বিদায়ের পালা। নতুন ইতিহাস গড়ে প্রথমবারের মতো আনুষ্ঠানিক বিদায়ী সংবর্ধনা দেওয়া হচ্ছে তাকে।

বঙ্গভবন সূত্রে জানা গেছে, বঙ্গভবনের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা রাস্তায় ফুলের পাপড়ি ছিটিয়ে বিদায় জানাবেন আবদুল হামিদকে। বাংলাদেশের ৫২ বছরের ইতিহাসে এই প্রথম কোনো রাষ্ট্রপতির বিদায়ে এমন সংবর্ধনাপূর্ণ আয়োজন করা হচ্ছে। এর আগে কোনো রাষ্ট্রপতিকে নিজেদের আয়োজনে বিদায় জানানোর সুযোগ হয়নি বঙ্গভবনের। এবার সেই সুযোগ পেয়ে বিশাল আয়োজনের প্রস্তুতি নিয়েছেন কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা।

বঙ্গভবনের প্রতিটি বিভাগের পক্ষ থেকে জানানো হবে ফুলের শুভেচ্ছা। নতুন রাষ্ট্রপতির শপথ এবং বর্তমান রাষ্ট্রপতির বিদায় অনুষ্ঠানে থাকবেন এক হাজারের বেশি অতিথি।

রাষ্ট্রপতির প্রেস সচিব জয়নাল আবেদীন জানিয়েছেন, বর্তমান রাষ্ট্রপতি নতুন রাষ্ট্রপতিকে স্বাগত জানাবেন। নতুন রাষ্ট্রপতি শপথ নেওয়ার পর বর্তমান রাষ্ট্রপতির চেয়ারে বসবেন। আর শপথ নেওয়ার আগে নয়া রাষ্ট্রপতি যে চেয়ারে বসেছিলেন, সেখানে বসবেন বিদায়ী রাষ্ট্রপতি। এ সময় তিনি রাষ্ট্রপতি কার্যালয়ের কর্মকর্তাদের সঙ্গে নতুন রাষ্ট্রপতিকে পরিচয় করিয়ে দেবেন।

বিদায় অনুষ্ঠানের শুরুতেই আবদুল হামিদকে বঙ্গভবনের ক্রেডেনশিয়াল গ্রাউন্ডে দেওয়া হবে গার্ড অব অনার। পরে বঙ্গভবনের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের উপস্থিতিতে ফুলে সজ্জিত একটি খোলা জিপে ফোয়ারা এলাকা থেকে প্রধান ফটকের দিকে যাত্রা করবেন রাষ্ট্রপতি। এ সময় তার গাড়ির সামনে থাকবে পুলিশের বিশেষ অশ্বারোহী দল।

বঙ্গভবনের কর্মকর্তারা গাড়ির সামনে রশি বেঁধে রাষ্ট্রপতির গাড়ি টেনে নিয়ে যাবেন মূল ফটক পর্যন্ত। দুই পাশে বঙ্গভবনের কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা দাঁড়িয়ে এ সময় সড়কে ফুলের পাপড়ি ছিটিয়ে রাষ্ট্রপতিকে বিদায়ের আয়োজনে অংশ নেবেন।

মূল আনুষ্ঠানিকতা শেষ হওয়ার পর আবদুল হামিদ বিশেষ নিরাপত্তা বাহিনীর (এসএসএফ) তত্ত্বাবধানে রাষ্ট্রপতির কার্যালয়ের প্রধান ফটক থেকে ভিভিআইপি মোটর শোভাযাত্রায় রওনা করবেন নতুন ঠিকানায়। বঙ্গভবন ছেড়ে রাজধানীর নিকুঞ্জে তার নিজ বাড়িতে উঠবেন আবদুল হামিদ।

সর্বোচ্চ সম্মান ও রাষ্ট্রীয় প্রটোকল অনুযায়ী আবদুল হামিদকে নিকুঞ্জের বাসায় নিয়ে যাওয়া হবে। এরই মধ্যে ওই এলাকায় নিরাপত্তা জোরদার আর বাইরের মানুষের প্রবেশাধিকার সীমিত করা হয়েছে।

প্রসঙ্গত, ২০১৩ সালের মার্চ মাসে অস্থায়ী এবং ২৪ এপ্রিল প্রথম দফায় দেশের ২০তম রাষ্ট্রপতি হিসেবে শপথ নেন কিশোরগঞ্জের সন্তান আবদুল হামিদ। এর পর ২০১৮ সালে দ্বিতীয় মেয়াদে ২১তম রাষ্ট্রপতির দায়িত্ব নেন তিনি।