বুধবার, ২৯ মে, ২০২৪, ১৫ জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১, ২০ জিলকদ, ১৪৪৫

শরীয়তপুরে ধানে চিটা, ফলন কমে যাওয়ায় হতাশ কৃষক

 

শরীয়তপুর সদর উপজেলার আটং এলাকার কৃষক মোস্তফা সরদার ১৬০ শতাংশ জমিতে বোরো ধানের আবাদ করেছিলেন। ওই জমিতে ধান উৎপাদন হওয়ার কথা ছিল ৯০ থেকে ১০০ মণ। তবে দাবদাহের কারণে ধানগাছ ও ধানের ফুল শুকিয়ে যায়, এতে অধিকাংশ ধান চিটা হয়ে গেছে। চিটা বাদ দিয়ে মোস্তফা সরদার ২৫ মণ ধান পেয়েছেন। এত অল্প ধান পেয়ে হতাশ হয়ে পড়েছেন তিনি।

শিরাজ চৌকিদার শরীয়তপুর চোখকে বলেন, জমিতে বোরো ধান আবাদ করার জন্য ৪৫ হাজার টাকা খরচ করেছেন। পরিবারের সব সদস্য মিলে চার মাস পরিশ্রম করেছেন। কিন্তু বেশির ভাগ ধান চিটা হয়ে গেছে। তাঁর জমি থেকে উৎপাদিত ধানেই সারা বছরের খরচের জোগান হতো। এখন কী করবেন, বুঝতে পারছেন না তিনি।

শরীয়তপুর জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্র জানায়, এ বছর শরীয়তপুর জেলায় ২৫ হাজার ১৯০ হেক্টর জমিতে বোরো ধানের আবাদ করা হয়েছে। ধান উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে ১ লাখ ৭৪ হাজার মেট্রিক টন। মে মাসের শুরুর দিকে শরীয়তপুরে ধান কাটা শুরু করেন কৃষকেরা। ইতিমধ্যে ৮০ শতাংশ ধান কেটেছেন তাঁরা।

শরীয়তপুরের ভেদরগঞ্জ উপজেলার ছয়গাঁও গ্রামের কৃষক ইলিয়াজ ঢালীর এক বিঘা জমিতে বোরো ধানের আবাদ করেছিলেন। তাঁর এ জমির ধানের বেশির ভাগ চিটা হয়ে গেছে। তিনি শরীয়তপুর চোখকে বলেন, তাঁর এক বিঘা জমিতে অন্তত ২০ মণ ধান পাওয়ার কথা। কিন্তু ধান পেয়েছেন মাত্র ৮ মণ। এ ধানে কীভাবে সংসার চালাবেন, তা নিয়ে দুশ্চিন্তায় পড়েছেন তিনি।

কৃষক হাতেম আলী,আলি আকবর, মেহেদী হাসানসহ একাধিক কৃষকদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, শরীয়তপুরে জানুয়ারি মাস জুড়ে কৃষকেরা খেতে বোরো ধান লাগান। এপ্রিল মাসের প্রথম সপ্তাহের দিকে ধান গাছে ফুল আসে। এ বছর এপ্রিল মাস জুড়ে দাবদাহ ছিল। ফলে ধানের ফুল শুকিয়ে অধিকাংশ ধান চিটা হয়ে গেছে। জমি থেকে কৃষকেরা ৪০ থেকে ৫০ শতাংশ ধান সংগ্রহ করতে পেরেছেন। বাকি ধান চিটা হয়ে গেছে।

কী পরিমাণ জমির ধানে চিটা হয়েছে, সেটার তথ্য জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের কাছে নেই। তবে শরীয়তপুর সদর উপজেলা, ভেদরগঞ্জ ও নড়িয়া উপজেলার বিভিন্ন গ্রামের ২০ কৃষকের সঙ্গে কথা বলে তাঁদের আবাদ করা ধানে চিটা হওয়ার বিষয়টি জানা যায়।

তবে শরীয়তপুর কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপপরিচালক রবীআহ নূর আহমেদ শরীয়তপুর চোখকে বলেন, এ বছর দাবদাহ দেখা দেওয়ায় কিছু স্থানে কৃষকের ধানের সামান্য কিছু ক্ষতি হয়েছে। ধান কাটার আগের আবহাওয়া পরিস্থিতি ভালো থাকায় অনেক কৃষক সেই ক্ষতি পুষিয়ে নিতে পেরেছেন। এ ছাড়া এ বছর বোরো ধানের আবাদ ও উৎপাদন দুটি বেড়েছে। জেলায় কিছু কৃষকের ধানে চিটা দেখা দেওয়ার তথ্য তাঁরা সংগ্রহ করছেন।

শরীয়তপুর সদর উপজেলার উত্তর আটং গ্রামের কৃষক হোসেন ব্যাপারী ১৬০ শতাংশ জমিতে বোরো ধানের আবাদ করেছিলেন। তাঁর প্রতি শতাংশ জমিতে ধানের আবাদ করতে খরচ হয়েছে ৪৫০ টাকা। তাঁর জমির ধান ৫০ শতাংশ চিটা হয়ে গেছে। মিজানুর রহমান, আলি আকবর শরীয়তপুর চোখকে বলেন, ‘আমার জমিতে ১০০ মণ ধান পাওয়ার কথা ছিল। কিন্তু ধান পেয়েছি ৫০ মণ। আমার চার মাসের পরিশ্রম বৃথা গেছে। সঙ্গে ৭০ হাজার টাকা লোকসান।’