বুধবার, ২৯ মে, ২০২৪, ১৫ জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১, ২০ জিলকদ, ১৪৪৫

৫ হাজার টাকা মামলা খেয়ে অজ্ঞান মোটরসাইকেল চালক

 

শরীয়তপুর ট্রাফিক পুলিশের টাউন সাব- ইন্সপেক্টর এক মোটর সাইকেল চালককে ৫ হাজার টাকা মামলা দেয়। ৫ হাজার টাকা মামলা দেয়ায় ওই মোটরসাইকেল চালক অজ্ঞান হয়ে পরে যায় বলে স্থানীয়রা জানান। গতকাল সোমবার বিকালে শরীয়তপুর পৌরসভার মনোহর বাজার মোড় এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। বিষয়টি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ভাইরাল হয়ে পড়ছে। পুরো জেলা আলোচনা-সমালোচনা হয়। মোটরসাইকেল চালকের নাম মো. নেছার উদ্দিন জমাদ্দার। সে শরীয়তপুরের গোসাইরহাট উপজেলার মাছুয়াকান্দি গ্রামের আব্দুল লতিফ জমাদ্দারের ছেলে। সে ভাড়া মোটরসাইকেল চালাতো।
পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়, মোটর সাইকেল চালক নেছার উদ্দিন গতকাল সোমবার বিকালে শরীয়তপুর জেলা শহর থেকে মোটরসাইকেল নিয়ে গোসাইরহাটের দিকে যাচ্ছিলেন। তাঁর মোটরসাইকেলে তিনজন তাকে নিয়ে ৩ জন যাত্রী থাকায় শরীয়তপুর পৌরসভার মনোহর বাজার মোড় এলাকায় তাকে দাঁড় করান টাউন সাব ইন্সপেক্টর (টিএসআই) ফজলুল করিম। দেখতে চান সব ধরনের কাগজপত্র। তবে সব কাগজপত্র ঠিক থাকলেও ড্রাইভিং লাইসেন্সের মেয়াদ উত্তীর্ণ ছিল। তাই টিএসআই ফজলুল করিম ওই মোটরসাইকেল চালককে ট্রাফিক আইনে ৫ হাজার টাকা জরিমানা করেন।
এ সময় জরিমানার টাকার অংক দেখে নেছার উদ্দিন অজ্ঞান হয়ে মাটিতে লুটিয়ে পড়ে। পরে নেছার উদ্দিনের সঙ্গে থাকা দুই যাত্রী তাকে উদ্ধার করে শরীয়তপুর সদর হাসপাতালে নিয়ে যান। পরে তাকে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে নেছার উদ্দিন বাড়িতে চলে যান। বিষয়টি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ভাইরাল হলে জেলা জুওে আলোচনা ও সমালোচনার ঝর ওঠে।
মোটরসাইকেল চালক মো. নেছার উদ্দিন বলেন, আমি দুইজন যাত্রী নিয়ে শরীয়তপুর শহর থেকে গোসাইরহাটের দিকে যাচ্ছিলাম। যখন মনোহর বাজার মোড়ে যাই তখন ট্রাফিক স্যারে আমাকে দাঁড় করান। আমি স্যারকে বলছিলাম, যে আমি ভাড়ায় মোটরসাইকেল চালাই। তবুও তিনি সবধরনের কাগজপত্র দেখতে চান। আমি দেখাইও, কিন্তু ড্রাইভিং লাইসেন্সের মেয়াদ চলে গেছে এটা জানতাম না। আমি তাকে অনেক অনুরোধ করি। কিন্তু সে তা মানেন না। তবুও তিনি আমাকে ৫ হাজার টাকা মামলা দেয়। ভাড়ায় গাড়ি চালাই, গরিম মানুষ। এতো টাকা কোথা থেকে দেব, এই চিন্তায় অজ্ঞান হয়ে যাই। তবে স্যারে বলেছেন, টাকা কমিয়ে দেবেন।

এ ব্যাপারে টাউন সাব ইন্সপেক্টর (টিএসআই) ফজলুল করিম বলেন, নিয়মিত কাজের অংশ হিসেবে মনোহর বাজার মোড়ে দায়িত্ব পালন করছিলাম। হঠাৎ করেই তিনজন একসাথে মোটরসাইকেলে যাচ্ছিলেন। আমি তাদেরকে দাঁড করাই এবং কাগজপত্র দেখতে চাই। সকল কাগজপত্র দেখার পরে তাঁর ড্রাইভিং লাইসেন্সের মেয়াদ না থাকায় তাকে ৫ হাজার টাকা জরিমানা করি। জরিমানার অঙ্ক দেখেই মাথা ঘুরে হঠাৎ করে পড়ে যান তিনি। আমরা তাঁর আর্থিক অবস্থা বিবেচনা করে জরিমানা কমিয়ে দেওয়ার বিষয়টি দেখবো।
শরীয়তপুর ট্রাফিক ইন্সপেক্টর (টিআই) মো. আবু সাঈদ বলেন, ব্যাপারটা আমি শুনেছি। অসুস্থ্য হয়ে পড়ছে, আমাদের লোকজনসহ তার মাথায় পানি ঢালে। পরে শরীয়তপুর সদর হাসপাতালে নিয়ে যায়। তিনি এখন সুস্থ আছেন। টাকা কমানো এখতিয়া আমাদের নেই। এটা এসপি সাহেবের কাছে।