বুধবার, ২৮ ফেব্রুয়ারি, ২০২৪, ১৫ ফাল্গুন, ১৪৩০, ১৭ শাবান, ১৪৪৫

গোসাইরহাটের নাগেরপাড়ায় মাঝরাতে বোমা বিস্ফোরণ’

 

শরীয়তপুরের গোসাইরহাট উপজেলায় বোমা বিস্ফোরনে একটি বাড়ীঘরের চাল উড়ে যাওয়াসহ ঘরের খাট আলমারি, আসবাবপত্র ও ফার্নিচার ও বেড়া দুমড়ে মুচড়ে যায়। শরীয়তপুর গোসাইরহাটের নাগেরপাড়ায় বসতবাড়ির ভিতরে শক্তিশালী বোমা বিষ্ফোরণ ঘটেছে। তবে কোন হতাহতের খবর পাওয়া যায়নি। আজ বুধবার ভোর সাড়ে ৩ টার দিকে এই গোসাইর হাটের নাগেরপাড়া গ্রামের আবুল হোসেনের বাড়িতে বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে।
আবুল হোসেন সরদার ও স্থানীয় সুত্রে জানা যায়, প্রতিদিনের ন্যায় আমরা সবাই খাওয়া দাওয়া শেষে ঘুমিয়ে পড়ি। ভোর সাড়ে ৩ টার দিকে আমার ঘরে ভিতরে আমার ঘরে মুখোশধারী কয়েকজন যুবক পিছনের দর্জা ভেঙ্গে ঘরে ঢুকে প্রবেশ করে। আবুল হোসেনের গলায় অস্ত্রধরে বলে তোর ছেলে আফজালকে খুজতে থাকে। আফজালকে বাড়ীতে না পেয়ে তাদের হাতে থাকা বোমা পাশের রুমে বোমা নিক্ষেপ করে। এতে বিকট শব্দ হয় মুহুর্তের মধ্যে ঘরের টিনের বেড়া চাল উড়ে যায়। এ সময় ঘরের খাট আলমারি, আসবাবপত্র ও ফার্নিচার ও বেড়া দুমড়ে মুচড়ে যায়। এর এ সময় মুখোশধারী সন্ত্রাসীরা পালিয়ে যায়। বোমা বিস্ফোরিত হওয়ায় পর বিকট শব্দে আশে পাশে আতঙ্কের সৃষ্টি হয়।

ঘরের মালিক আবুল সরদারের স্ত্রী নাছিমা আক্তার বলেন, আমরা ঘরে ঘুমিয়ে ছিলেন, রাত সাড়ে তিনটার দিকে হঠাৎ মুখোশধারী কয়েকজন সন্ত্রাসী ঘরের পিছনের দর্জা ভেঙ্গে ঘরে ঢুকে। এর পর আমার ছেলেকে খুঁজতে থাকে। তাকে না পেয়ে হাত থেকে বোমা নিক্ষেপ করে। এ সময় ঘরের ভিতর থাকা আসবাবপত্র ও টিনের বেড়া চাল উড়ে যায়। এবং প্রচন্ড ধুয়ায় অন্ধতার হয়ে যায়। তখন তারা পালিয়ে যায়।
বাড়ির প্রতিবেশি নুরজাহান বেগম বলেন, আমরা রাতে ঘুমিয়ে ছিলাম। গভীর রাতে হঠাৎ বিকট শব্দে ঘুম ভেঙে যায়। বাইরে বেরিয়ে দেখি দারিদিকে ধোঁয়া। আর বারুদের গন্ধ। বিকট শব্দ হওয়ায় গোয়ালে থাকা গরু গুলি ছুটাছুটি করতে থাকে। আবুল হোসেন সরদারের ঘরের টিনের চাল আমাদের ঘরে উড়ে এসে পড়ে।
বোমা বিস্ফোরণের সত্যতা নিশ্চিত করে গোসাইরহাট থানা অফিসার ইনচার্জ মো.আসলাম সিকদার বলেন, বিষয়টি তদন্ত চলছে। তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেয়া হবে।