বুধবার, ২৯ মে, ২০২৪, ১৫ জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১, ২০ জিলকদ, ১৪৪৫

বাঁশি বাজিয়ে লজেন্স বিক্রি করেন দৃষ্টিহীন রফিকুল

 

বাবা গরিব হওয়ায় ছোট্ট বয়সে টাইফয়েড জ্বরে হারিয়েছেন দুটি চোখ। একদিকে দরিদ্রতা অন্যদিকে অন্ধ হলেও তিনি ভিক্ষাবৃত্তি না করে লজেন্স বিক্রি করে জীবিকা নির্বাহ করেন। বাঁশিতে সুর তুলে সবাইকে বিমোহিত করে তিনি বিক্রি করেন লজেন্স। 

সম্প্রতি কথা হয় ৭১ বছর বয়সী রফিকুল ইসলাম মুন্সীর সঙ্গে। তিনি শরীয়তপুর সদর উপজেলার ভুচূড়া গ্রামের মৃত হোসেন মুন্সীর ছেলে।

অতি দরিদ্র পরিবারে জন্ম হওয়ায় ১০ বছর বয়স থেকে দৃষ্টি প্রতিবন্ধী রফিকুল ইসলামের জীবন সংগ্রাম শুরু হয়। এক সময় ঢাকার বিভিন্ন গণপরিবহনে লজেন্স বিক্রি করলেও এখন বয়সের ভারে নিজ গ্রামের পার্শ্ববর্তী কানার বাজার ও পালং বাজারের বিভিন্ন জায়গায় ঘুরে ঘুরে বাঁশি ও লজেন্স বিক্রি করতে দেখা যায় তাকে। এ লজেন্স বিক্রির সামান্য আয় দিয়েই চলে তার সংসার।

রফিকুল ইসলামের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, ১৯৫২ সালের দিকে অতি দরিদ্র পরিবারে জন্ম রফিকুলের। বয়স যখন ৪ বছর তখন টাইফয়েড জ্বরে আক্রান্ত হন তিনি। গরিব বাবার পক্ষে চিকিৎসা করানো সম্ভব না হওয়ায় হারাতে হয়েছে দুই চোখ। তবে হেরে যাননি তিনি। ১০ বছর বয়স থেকে শুরু হয় তার জীবন সংগ্রাম। ভিক্ষাবৃত্তিকে ভীষণভাবে অপছন্দ করায় শুরু করেন কাজের সন্ধান। এরপর তিনি রাজধানী ঢাকার বিভিন্ন জায়গায় বাসে আর ট্রেনে ঘুরে ঘুরে লজেন্স বিক্রি করতে থাকেন। ১৯৭৩ সালে লজেন্স বিক্রির কোনো এক সময় পরিচয় হয় এক বাঁশিওলার সঙ্গে ৷ তার কাছ থেকেই রপ্ত করেন বাঁশি বাজানো। এরপর বাঁশি বাজিয়ে লজেন্স বিক্রি করা শুরু করেন তিনি। যা এখন পর্যন্ত ধরে আছেন। তার সংসার জীবনে স্ত্রী রোকেয়া বেগম, ২ ছেলে আব্দুর রহিম, সোহাগ মুন্সি রয়েছেন। যদিও ছেলেরা বিয়ের পরে তাদের সংসার নিয়ে আলাদা থাকছেন।

রফিকুল ইসলাম বলেন, ৪ বছর বয়স থেকে দৃষ্টি প্রতিবন্ধী আমি। সেই থেকেই আমার দুঃখের জীবন। শুনেছি ভিক্ষা করা আল্লাহ পছন্দ করে না। তাই নিজে নিজেই কাজের সন্ধান করে লজেন্স বিক্রি করা শুরু করি। আমি এখন পর্যন্ত কারো কাছ থেকে কোনো আর্থিক সহযোগিতা পাইনি। জীবনের শেষ দিন পর্যন্ত এভাবেই সংগ্রাম করে যাব।

স্থানীয় বাসিন্দা আবদুর রাজ্জাক মোল্লা বলেন, রফিকুল ইসলাম ভিক্ষা না করে নিজে নিজের কর্ম করে খায়। এটা আমাদের এলাকাবাসীর কাছে একটি গর্বের বিষয়।

বোরহান উদ্দীন মুন্সি, আতাউর রহমান বলেন, তিনি খুব ছোটবেলা থেকে বাঁশি বাজিয়ে লজেন্স বিক্রি করেন। তিনি দৃষ্টি প্রতিবন্ধী হলেও ভিক্ষা করেন না। এভাবেই তার সংসার চলছে।

স্কুল শিক্ষক আলমগীর হোসেন বলেন, তাকে আমরা খুব ছোট বেলা থেকেই চিনি। উনি চোখে দেখতে পান না। তিনি বিভিন্ন গ্রামে, হাট বাজারে বাঁশি বাজিয়ে লজেন্স বিক্রি করেন। তবে একটি বিষয় হচ্ছে উনি দৃষ্টি প্রতিবন্ধী হয়ে কারো উপর নির্ভরশীল না হয়ে আত্মনির্ভরশীল হয়ে নিজেই সংসার চালাচ্ছেন। এটা আমাদের সমাজের জন্য একটি দৃষ্টান্ত।

শরীয়তপুর সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) জ্যোতি বিকাশ চন্দ্র বলেন, রফিকুল ইসলামের কথা আমি অনেক শুনেছি। তিনি দারুণ বাঁশি বাজায়। একটা বিষয় হচ্ছে উনি দৃষ্টি প্রতিবন্ধী হয়েও ভিক্ষাবৃত্তিকে পেশা হিসেবে না নিয়ে বাঁশি বাজিয়ে লজেন্স বিক্রি করে জীবিকা নির্বাহ করে থাকেন। এটা সত্যিই অবাক করার মতো। উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে তাকে সহযোগিতা করা হবে।