শনিবার, ২০ এপ্রিল, ২০২৪, ৭ বৈশাখ, ১৪৩১, ১০ শাওয়াল, ১৪৪৫

চালু হলো গোসাইরহাট-পট্টি নদী বন্দর

 

শরীয়তপুরের গোসাইরহাট-পট্টি নদী বন্দর উদ্বোধন করেছেন নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী। মঙ্গলবার (৭ নভেম্বর) দুপুরে তিনি বন্দরটি উদ্বোধন করেন।

শরীয়তপুরের গোসাইরহাটকে বাংলাদেশের প্রথম কৃষি প্রধান অর্থনৈতিক অঞ্চল হিসেবে গড়ে তোলার আশা করছে বাংলাদেশ অর্থনৈতিক অঞ্চল কর্তৃপক্ষ (বেজা)।

বাংলাদেশ অর্থনৈতিক অঞ্চল কর্তৃপক্ষ (বেজা) ও বিআইডব্লিউটিএ সূত্রে জানা যায়, শরীয়তপুরের গোসাইরহাট-পট্টি নদী বন্দরটি জেলার একটি গুরুত্বপূর্ণ নৌপথ। এখান থেকে ঢাকা-চাঁদপুর-বরিশালসহ কয়েকটি জেলায় প্রতিদিন প্রায় ২০-৩০টি ট্রলারে বিভিন্ন ধরনের মালামাল পরিবহন করা হয়। এছাড়া এ নদী দিয়ে প্রতিদিন তিনটি করে লঞ্চ ঢাকায় চলাচল করে। এই অঞ্চলটিতে বিভিন্ন ধরনের শস্য উৎপাদন হয়ে থাকে। তাই ৬৮৬ একর জায়গা নিয়ে কৃষি বেইজ অর্থনৈতিক অঞ্চল হিসেবে গড়ে তোলার পরিকল্পনা রয়েছে সরকারের।

এটি অর্থনৈতিক অঞ্চল হিসেবে গড়ে উঠলে এখানকার কৃষি পণ্য প্রক্রিয়াজাত করার জন্য বিভিন্ন কলকারখানা প্রতিষ্ঠা করা হবে। এখানকার কৃষি পণ্য অভ্যন্তরীণ বাজারে ছড়িয়ে দেওয়ার পরিকল্পনা করা হচ্ছে। পণ্য পরিবহনে অন্যান্য রুটের চেয়ে নদী পথে পরিবহনে খরচ কম হওয়ায় গোসাইরহাট অর্থনৈতিক অঞ্চলটিকে চাঙ্গা করতে গোসাইরহাট পট্টি নদীবন্দরের চালু করা হয়েছে।

বাংলাদেশ অর্থনৈতিক অঞ্চল কর্তৃপক্ষের (বেজা) নির্বাহী চেয়ারম্যান (সিনিয়র সচিব) শেখ ইউসুফ হারুন বলেন, শরীয়তপুরের গোসাইরহাটে বাংলাদেশের প্রথম কৃষি প্রধান অর্থনৈতিক অঞ্চল গড়ে তোলা হবে। এতে এখানকার মানুষ কৃষিসহ বিভিন্নভাবে স্বাবলম্বী হতে পারবে। তাই অর্থনৈতিক অঞ্চল গড়ে তোলার জন্য নদী বন্দর খুবই গুরুত্বপূর্ণ। কেননা নৌ পথ দিয়ে পণ্য পরিবহন বেশি লাভজনক। আর এসব কারণেই এখানে নদী বন্দর চালু করা হয়েছে।