শুক্রবার, ২৩ ফেব্রুয়ারি, ২০২৪, ১০ ফাল্গুন, ১৪৩০, ১২ শাবান, ১৪৪৫

হেলিকপ্টারে বউ এনে শখ মেটালেন বর

 

দীর্ঘদিনের ইচ্ছা ছিল বিয়ে করে স্ত্রীকে নিয়ে হেলিকপ্টারে চড়ে বাড়ি ফিরবেন। নিজের সেই স্বপ্ন অবশেষে পূরণ করলেন নিজেই। বিয়ে শেষে হেলিকপ্টারে চড়ে নববধূকে নিয়ে বাড়ি ফিরেছেন নিলয় হাসান নামের এক ইতালি প্রবাসী যুবক।

বর নিলয় হাসান (৩৫) শরীয়তপুরের নড়িয়া উপজেলার ঘড়িষার ইউনিয়নের বাহিরকুশিয়া এলাকার মৃত আবুল কাশেম ছৈয়ালের ছেলে। অন্যদিকে কনে সাবিনা আক্তার (২৫) বরিশাল জেলার বাকেরগঞ্জ উপজেলার চড়াইল্লাপুরের সাদেক হাওলাদারের মেয়ে।

শুক্রবার (২৯ ডিসেম্বর) দুপুরে ঢাকা হাজিক্যাম্পে ‘হোটেল হলিডে এক্সপ্রেসে’ বিয়ে সম্পন্ন করেন তারা। বিয়েতে দুই পরিবারের লোকজন উপস্থিত ছিলেন। এর আগে ইতালি থেকে রওনা দিয়ে গত বৃহস্পতিবার বিকেল ৫টার দিকে হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণ করেন নিলয়। বিয়ের অনুষ্ঠান সম্পন্ন শেষে দুই ঘণ্টার জন্য ১ লাখ ১৫ হাজার টাকা দিয়ে হেলিকপ্টার ভাড়ায় এনে চড়েন বর আর নববধূ। পরে বরের নিজ বাড়ি শরীয়তপুরের ঘড়িষার এলাকার উদ্দেশ্যে রওনা হয়ে বিকেলে ডিঙ্গামানিক ইউনিয়নের পন্ডিতসার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মাঠে অবতরণ করেন। এ সময় আশপাশের এলাকা থেকে হাজারো উৎসুক জনতা হেলিকপ্টার দেখতে ভিড় জমায়। পরে পরিবার ও আত্মীয়-স্বজন বর ও নববধূকে ফুল দিয়ে বরণ করেন।

স্থানীয় বাসিন্দা শাহাজালাল বেপারী বলেন, দূর থেকে হেলিকপ্টার দেখলেও এই প্রথম খুব কাছ থেকে হেলিকপ্টার দেখলাম। নিলয় আমাদের প্রতিবেশী। সে বউ নিয়ে হেলিকপ্টার করে বাড়ি ফিরেছে। আমাদের কাছে বিষয়টি ভীষণ ভালো লেগেছে।

নিলয় হাসানের বোন সুরমা বেগম বলেন, আমরা ১০ ভাই বোনের মধ্যে নিলয় সবার ছোট। ও আমাদের ভীষণ আদরের। ওর অনেক দিনের ইচ্ছা ছিল হেলিকপ্টারে চড়ে বউ নিয়ে বাড়ি ফিরবে। ওর ইচ্ছে পূরণ হওয়ায় আমরাও ভীষণ খুশি।

বর নিলয় হাসান বলেন, আমি দীর্ঘ ১৮ বছর ধরে ইতালি থাকি। আমি আমার ইচ্ছা পূরণ করতে হেলিকপ্টারে চড়ে বউ নিয়ে বাসায় ফিরেছি। হেলিকপ্টারটি ঢাকা থেকে ভাড়া করা হয়েছে। আমার দীর্ঘদিনের ইচ্ছা আজ পূরণ হয়েছে। আপনারা সবাই আমাদের জন্য দোয়া করবেন।

এ ব্যাপারে ঘড়িষার ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আ. রব খাঁন বলেন, নিলয় হাসান আমাদের এলাকার ছেলে। সে দীর্ঘদিন ধরে ইতালি প্রবাসী। বিয়ে করে বউ নিয়ে হেলিকপ্টারে চড়ে বাড়ি ফিরেছে বলে জানতে পেরেছি। তবে আমি ব্যস্ততার কারণে যেতে পারিনি।