বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন, ২০২৪, ৩০ জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১, ৬ জিলহজ, ১৪৪৫

শরীয়তপুরে হাতুড়িপেটায় গরু ব্যবসায়ীর পা ভেঙে দিলো প্রতিপক্ষ

 

শরীয়তপুরের নড়িয়ায় পূর্ব শত্রুতার জেরে গনি শিকদার (৫৫) নামের এক গরু ব্যবসায়ীর পা ভেঙে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। বুধবার (১০ জানুয়ারি) সকাল সাড়ে ৭টার দিকে উপজেলার পশ্চিম লোনসিং এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

আব্দুল গনি শিকদার উপজেলার মোক্তারের চর ইউনিয়নের ৭ নম্বর ওয়ার্ড কালিকা প্রসাদ এলাকার হাসেম শিকদারের ছেলে।

পুলিশ ও ভুক্তভোগী পরিবার সূত্র জানায়, গনি শিকদারের সঙ্গে একই এলাকার আব্দুল আলী শিকদারের জমি নিয়ে বিরোধ চলে আসছিল। এছাড়াও দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ঈগল প্রতীকের স্বতন্ত্র প্রার্থী খালেদ শওকত আলীর সমর্থক ছিলেন তিনি। তিনি নির্বাচনের দিন ৭১ নম্বর চেরাগ আলী বেপারী কান্দি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রের পোলিং এজেন্ট ছিলেন। অন্যদিকে আব্দুল আলী শিকদার নৌকা প্রতীকের প্রার্থী একেএম এনামুল হক শামীমের সমর্থক ছিলেন। বুধবার সকালে গরু কেনার জন্য বাসা থেকে বের হন গনি শিকদার। এ সময় তিনি পৌরসভার পশ্চিম লোনসিং এলাকায় পৌঁছালে আব্দুল আলী শিকদার ও তার দুই ছেলে মোরশেদ শিকদার এবং আশিক শিকদার আব্দুল গনি শিকদারের ওপর হামলা চালায়। এ সময় তারা উপর্যুপরি হাতুড়িপেটা করে গনি শিকদারের ডান পা ভেঙে দেন। শরীরের বেশকিছু স্থানে জখম করে তার গরু কেনার দুই লাখ টাকা নিয়ে চলে যান।

আহতের স্ত্রী চন্দ্রবান বেগম বলেন, অনেক আগে থেকেই তাদের সঙ্গে জমি নিয়ে বিরোধ ছিল। আবার নির্বাচনে আমার স্বামী ঈগলের হয়ে কাজ করছে। তারা নৌকার লোক। সকালে আমার স্বামীর টাকা নিয়ে বাজারে গেছিল। তখন নৌকার আব্দুল আলী শিকদার ও তার ছেলেরা আমার স্বামীকে মেরে টাকা নিয়ে পালিয়ে যান।

গনি শিকদারের মেয়ের জামাই মনির ফকির বলেন,আমার শ্বশুরের অবস্থা বেশি ভালো না। তাকে ঢাকায় রেফার করা হয়েছে। আমরা এ ঘটনার সুষ্ঠু বিচার চাই।

নির্বাচনে ঈগল প্রতীকের প্রার্থী খালেদ শওকত আলী বলেন, গনি শিকদার নির্বাচনের সময় আমার পোলিং এজেন্ট ছিলেন। সে আমার পক্ষে কাজ করায় নৌকা প্রতীকের প্রার্থী এনামুল হক শামীমের লোকজন তাকে মেরে পা ভেঙে দিয়েছে। আমি এর বিচার চাই।

জানতে চাইলে নির্বাচনে নৌকা প্রতীকের প্রধান সমন্বয়ক ও নড়িয়া পৌরসভার মেয়র আবুল কালাম আজাদ বলেন, নির্বাচনের ঘটনা নিয়ে যাতে কোনো সহিংসতা না ছড়ায় সে বার্তা আমাদের নেতাকর্মীদের দেওয়া হয়েছে। যারা এ ঘটনা ঘটিয়েছে তারা আমাদের দলের কেউ না। এটা অত্যন্ত দুঃখজনক বিষয়। আমি যতোটুকু জানি ব্যক্তিগত ঝামেলা থেকে এ ঘটনা ঘটেছে।

হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক আতিকুর রহমান বলেন, তার ডান পায়ের নিচের অংশের দুটি হাড় ভেঙে গেছে। প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে পঙ্গু হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

জানতে চাইলে নড়িয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় একজনকে আটক করা হয়েছে। এ বিষয়ে আইনি পদক্ষেপ নেয়া হবে।