শনিবার, ২০ এপ্রিল, ২০২৪, ৭ বৈশাখ, ১৪৩১, ১০ শাওয়াল, ১৪৪৫

পদ্মা নদীতে দুই স্পীডবোটের সংঘর্ষে ১ জন নিহত, ম্যাজিস্ট্রেটসহ আহত ১১

ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে দায়িত্ব পালন শেষে ফেরার পথে শরীয়তপুরে ভেদরগঞ্জ উপজেলার কাঁচিকাটায় পদ্মা নদীতে দুই স্পীডবোটের মুখোমুখি সংঘর্ষে ১ যুবক নিহত ও এসময় ৩জন ম্যাজিস্ট্রেটসহ আহত হয়েছে ১১ জন হয়েছে। গতকাল শনিবার রাত ৯ টার দিকে উপজেলার মনাই হাওলাদারকান্দির দুলারচর পয়েন্টে এলাকায় পদ্মা নদীতে এ দুর্ঘটনা ঘটে।
নিহতের মোক্তার হোসেন গাজি (১৮)। সে তারাবুনিয়া ইউনিয়নের ৭নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা বাচ্চু গাজির ছেলে। আহত তিন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট হলেন ম্যাজিস্ট্রেটরা হল বাসিত সাত্তার, আব্দুল্লাহ আল মামুন, সহকারী কমিশনার (ভূমি) এনামুল হাফিজ নাদিম। তাদেরকে ঢাকা ও চাঁদপুর চিকিৎসার জন্য প্রেরণ করা হয়েছে। শরীয়তপুরের জেলা প্রশাসক মুহাম্মদ নিজাম উদ্দিন আহম্মেদ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

স্থানীয় ও জেলা প্রশাসন সূত্রে জানা যায়, ভেদরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার (ইউএনও) কার্যালয় সূত্র জানায়, পদ্মা নদীবেষ্টিত চরাঞ্চল কাঁচিকাটা ইউপিতে গতকাল নির্বাচন হয়েছে। ওই নির্বাচনে দায়িত্ব পালন করেন তিন ম্যাজিস্ট্রেট। তাঁরা তিনজন এবং তাঁদের সঙ্গে থাকা ওই কার্যালয়ের অফিস সহকারীরা গতকাল রাত ৯ টার দিকে স্পিডবোটে করে ভেদরগঞ্জের মনাই হাওলাদারকান্দি ঘাটের দিকে রওনা হন। দুলারচর পয়েন্টে পৌঁছালে অপরদিক থেকে আসা স্পিডবোটের সঙ্গে তাঁদের স্পিডবোটের মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এতে ঘটনাস্থালে মোক্তার হোসেন নামের একজনের মৃত্যু হয়। নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটদের বহন করা স্পিডবোটের ৯ জন আহত হন। আর অপর স্পিডবোটের দুজন আহত হন। আহতদের মধ্যে অন্যান্যরা হলেন, ম্যাজিস্ট্রেটদের গাড়ি চালক মো. সোহেল, জজ কোর্টের পেশকার হুমায়ুন কবীর, জুয়েল পাল, মো. বোরহান ও উত্তর তারাবুনিয়া এলাকার বারেক মিয়ার ছেলে সাইফুল ইসলাম। তাঁদের উদ্ধার করে স্থানীয়রা ঢাকা ও চাঁদপুর সদর হাসপাতালে নিয়ে যান।
স্পিডবোটের যাত্রী ও জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের অফিস সহকারী জুয়েল পাল বলেন, ‘কাঁচিকাটা ঘাট থেকে রওনা দেওয়ার পর আমাদের বহনকারী স্পিডবোটটি ঘাটের কাছাকাছি চলে এসেছিল। বিপরীত দিক থেকে একটি স্পিডবোট হঠাৎ সজোরে আমাদের বোটটিকে ধাক্কা দেয়। আমরা ছিটকে একেকজন একেক দিকে পড়ে যাই। আহত অবস্থায় স্থানীয় লোকজন আমাদের উদ্ধার করেছেন।’

ভেদরগঞ্জ উপজেলার নির্বাহি কর্মকর্তা রাজিবুল ইসলাম বলেন, ‘নির্বাচনের কাজ শেষ করে আমাদের কর্মকর্তা ও কয়েকজন অফিস সহকারী ফিরছিলেন। তাঁরা ঘাটের কাছে পৌঁছানোর আগে একটি স্পিডবোট তাঁদের ওপর উঠিয়ে দেওয়া হয়। আমাদের তিন কর্মকর্তাসহ ১০ জন আহত হয়েছেন। অন্য বোটের কেউ হতাহত হয়েছেন কি না, তা এখনো জানতে পারিনি। আমাদের আহত দুজন কর্মকর্তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় পাঠানো হবে।’
ভেদরগঞ্জের সখীপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাসুদুর রহমান বলেন, দুটি স্পিডবোটের মুখোমুখি সংঘর্ষের ঘটনায় একজন মারা গেছেন। কারা স্পিডবোট চালাচ্ছিলেন, আর কীভাবে দুর্ঘটনা ঘটেছে, তা তদন্ত করা হবে।