বুধবার, ২৯ মে, ২০২৪, ১৫ জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১, ২০ জিলকদ, ১৪৪৫

মন্ত্রিসভায় প্রধানমন্ত্রী মধ্যপ্রাচ্যের পরিস্থিতির ওপর নজর রাখুন

 

ইসরাইলে ইরানের হামলার পর উত্তেজনাকে কেন্দ্র করে মধ্যপ্রাচ্যের পরিবর্তিত পরিস্থিতির ওপর নজর রাখতে মন্ত্রীদের নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। প্রধানমন্ত্রী নিজেও পরিস্থিতি নিয়মিত পর্যালোচনা করছেন বলে জানান। তিনি মন্ত্রীদের বলেছেন, মধ্যপ্রাচ্যে চলমান বহুপাক্ষিক যুদ্ধ পরিস্থিতি কোন দিকে মোড় নেয়, সেদিকে গভীর পর্যবেক্ষণ রাখতে হবে। একইসঙ্গে সম্ভাব্য কী ধরনের পরিস্থিতি তৈরি হতে পারে সে বিষয়ে অগ্রিম পরিকল্পনা করে রাখতে হবে। বুধবার প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত মন্ত্রিসভার বৈঠকে তিনি এ নির্দেশ দেন।

বিকালে মন্ত্রিপরিষদ সচিব মো. মাহবুব হোসেন এক প্রেস ব্রিফিংয়ে সাংবাদিকদের এ সব কথা বলেন। এপ্রিলের শুরুতে সিরিয়ার রাজধানী দামেস্কে ইরানের কনস্যুলেটে বিমান হামলা চালিয়ে ইরানের বেশ কয়েকজন কর্মকর্তাকে হত্যা করা হয়েছে, যার জন্য ইসরাইলকে দায়ী করছে ইরান।

এর প্রতিশোধ হিসাবে শনিবার রাতে ইসরাইলের ভূখণ্ডে তিন শতাধিক ড্রোন ও ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালায় ইরান। এ ঘটনায় ইরাক, জর্ডানসহ মধ্যপ্রাচ্যের বেশ কয়েকটি দেশে একদিনের জন্য বাণিজ্যিক বিমান চলাচল বন্ধ ছিল। এই ঘটনা মধ্যপ্রাচ্যে আঞ্চলিক যুদ্ধে রূপ নেয় কিনা বিশ্লেষকরা সেই আশঙ্কা করছেন। মধ্যপ্রাচ্য বিশ্বের অন্যতম প্রধান তেল ও গ্যাসের জোগানদাতা অঞ্চল। মন্ত্রিপরিষদ সচিব মাহবুব হোসেন বলেন, মধ্যপ্রাচ্যে এখন যে পরিস্থিতি তৈরি হচ্ছে সেদিকে নজর রাখার জন্য সবগুলো মন্ত্রণালয়কে বলেছেন প্রধানমন্ত্রী। সম্ভাব্য রিয়্যাকশন কী হতে পারে সে বিষয়ে প্রস্তুতি নিতে বলেছেন। সংঘাত দীর্ঘমেয়াদি হলে সেটা মোকাবিলা কীভাবে করা হবে সেজন্য প্রস্তুতি নিতে বলেছেন। ঘটনা প্রবাহের দিকে নজর রাখতে বলেছেন। প্রধানমন্ত্রী নিজেও পর্যালোচনা করছেন। মন্ত্রণালয়গুলোকেও পর্যালোচনা করতে বলেছেন। কী কী করতে হবে সেটা ঠিক করতে বলেছেন তিনি। বৈঠকে ত্রৈমাসিক প্রতিবেদন উপস্থাপন পর্বে প্রধানমন্ত্রী বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের দীর্ঘদিন ধরে বাস্তবায়নাধীন প্রকল্পগুলো পুনর্বিবেচনার নির্দেশ দিয়েছেন বলে জানান সচিব।

তিনি বলেন, যেসব প্রকল্প বারবার প্রতিবেদনে বাস্তবায়নাধীন লেখা হচ্ছে সেগুলো দ্রুত শেষ করতে হবে। হয় বাস্তবায়ন করতে হবে, অথবা সেগুলো আবার মন্ত্রিসভায় নিয়ে আসতে হবে। বলতে হবে যে, এই কারণে এগুলো বাস্তবায়ন সম্ভব হচ্ছে না। এ ব্যাপারে দ্রুত মন্ত্রিসভাকে অবহিত করতে বলেছেন প্রধানমন্ত্রী। হয় বাস্তবায়ন করবে, না হয় বিলম্বের কারণ আমাদের জানতে হবে।