বুধবার, ২৯ মে, ২০২৪, ১৫ জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১, ২০ জিলকদ, ১৪৪৫

বহিরাগতদের অস্ত্রাগার দেখিয়ে ফেসবুকে লাইভ: এসপিকে বাধ্যতামূলক অবসর

 

বহিরাগত ব্যক্তিদের অস্ত্রাগার দেখানো এবং অস্ত্রের বর্ণনা দিয়ে তা ফেসবুকে সরাসরি সম্প্রচারের সুযোগ করে দেওয়ায় খুলনা রেঞ্জের পুলিশ সুপার মো. শাহেদ ফেরদৌস রানাকে বাধ্যতামূলক অবসরে পাঠানো হয়েছে।

গত ৯ এপ্রিল স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জারি করা এক প্রজ্ঞাপনে এই ব্যবস্থা নেওয়ার কথা জানানো হয়।

প্রধানমন্ত্রীর নিরাপত্তার দায়িত্বে নিয়োজিত পুলিশের বিশেষ ইউনিট এসপিবিএন-১ এর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার হিসেবে দায়িত্ব পালনকালে ২০২০ সালের ২৯ অগাস্ট শাহেদ ফেরদৌস রানা তিনজন বহিরাগতকে অস্ত্রাগার দেখার সুযোগ করে দেন।

ওই ঘটনায় তার বিরুদ্ধে সরকারি কর্মচারী (শৃঙ্খলা ও আপিল) বিধিমালা ২০১৮ এর বিধি ৭(১) (খ) অনুযায়ী বিভাগীয় মামলা করা হয়।

প্রায় আড়াই বছর তদন্ত শেষে গুরুদণ্ড হিসাবে তাকে বাধ্যতামূলক অবসরে পাঠানোর সিদ্ধান্ত দিল সরকার।

এর আগে ওই পুলিশ কর্মকর্তাকে কারণ দর্শানোর নোটিস দেওয়ার পাশাপাশি তার ব্যক্তিগত শুনানি হয়। পরে বিষয়টি তদন্ত করে প্রতিবেদন দাখিলের জন্য একজন কর্মকর্তাকে তদন্তের দায়িত্ব দেওয়া হয়।

তদন্ত কর্মকর্তা তার প্রতিবেদনে বলেন, শাহেদ ফেরদৌস রানা তার বিরুদ্ধে উত্থাপিত অভিযোগ খণ্ডেনের মত কোনো যুক্তি উপস্থাপন করতে পারেননি। ফেসবুকে প্রচারিত ভিডিওটি ‘আসল’ বলেও মতামত দিয়েছে ফরেনসিক বিভাগ। তার বিরুদ্ধে আনা ‘অসদাচরণ’-এর অভিযোগ সন্দেহাতীতভাবে প্রমাণিত হয়েছে।

এ বিষয়ে বাংলাদেশ সরকারি কর্ম কমিশনের পরামর্শ চাওয়া হলে কমিশন শাহেদ ফেরদৌস রানাকে বাধ্যতামূলক অবসরে পাঠানোর সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত করার পরামর্শ দেয়।

বিসিএস পুলিশের ২৫তম ব্যাচের কর্মকর্তা শাহেদ ফেরদৌস ২০০৬ সালের ২১শে আগস্ট পুলিশ বাহিনীতে যোগ দেন। তিনি চাঁদপুরের স্থায়ী বাসিন্দা।