বুধবার, ২৯ মে, ২০২৪, ১৫ জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১, ২০ জিলকদ, ১৪৪৫

জাজিরার বিলাসপুর ইউনিয়নে আতঙ্কের নাম ককটেল, আহত আরেক যুবকের মৃত্যু

 

জাজিরা উপজেলার বিলাসপুর ইউনিয়নে এখন আতঙ্কের নাম ককটেল। সামান্য বিরোধে সংঘর্য বাধলেই ককটেল হামলা হচ্ছে। প্রাণহানির ঘটনাও ঘটেছে অনেক। সংঘর্ষে হাতবোমার আঘাতে গুরুতর আহত সৈকত সরদার নামে এক তরুণ ঢাকায় চিকিৎসাধীন থাকা অবস্থায় তিন দিন পর মারা গেছেন। শনিবার বিকালে ঢাকার ইসলামী ব্যাংক হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় সৈকত মারা যান বলে জানিয়েছে তার পরিবার। গত পাঁচ বছরে আওয়ামী লীগের দুটি গ্রুপের মধ্যে আধিপত্য বিস্তার নিয়ে বিলাসপুরে ১৮টি গ্রামে অন্তত ২০০টি সংঘর্ষ হয়েছে। তাতে মামলা হয়েছে ৫৬টি। পুলিশ নামমাত্র অভিযান চালালেও গডফাদাররা রয়ে যায় ধরাছোঁয়ার বাইরে। সবশেষ গত বুধবার বিলাসপুর ইউনিয়ন পরিষদের বর্তমান চেয়ারম্যান উপজেলা আ.লীগের সদস্য কুদ্দুস বেপারী ও তার প্রতিপক্ষ স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাবেক সহ-সভাপতি আবদুল জলিল মাদবরের সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এ সংঘর্ষের সময় দুটি গ্রুপের লোকজন দুই শতাধিক ককটেল বোমার বিস্ফোরণ ঘটায়। ২৫টি বাড়িঘর ভাঙচুর করা হয়। এতে ২০ জন আহত হন। এর মধ্যে গুরুতর আহত সৈকত সরদার ঢাকায় ইসলামী ব্যাংক হাসপাতালে টানা তিন দিন চিকিৎসাধীন থাকা অবস্থায় শনিবার বিকালে মারা যান। নিহত সৈকত বিলাসপুরের মুলাই বেপারি কান্দি গ্রামের মৃত কাশেম সরদারের ছেলে। নিহত সৈকত বিলাসপুরের বর্তমান চেয়ারম্যান মো. কুদ্দুস বেপারির সমর্থক ছিলেন। এর আগে ২৮ মার্চ দুপক্ষের সংঘর্ষের সময় ককটেল বিস্ফোরণে সজিব মুন্সি নামে আরেক যুবক আহত হন। পরে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ৩ এপ্রিল তিনি মারা যান। বিলাসপুর ইউনিয়নের মিয়াচান মুন্সী কান্দি এলাকার মোহাম্মদ আলী মুন্সীর ছেলে সজিব। নিহত সজিব পরাজিত চেয়ারম্যান প্রার্থী আব্দুল জলিল মাদবরের সমর্থক ছিলেন। জানা যায়, বিলাসপুর ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যান ও জাজিরা উপজেলা আ.লীগের সদস্য কুদ্দুস বেপারী। তার সঙ্গে ২০২২ সালে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে হেরে যান স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাবেক সহ-সভাপতি আবদুল জলিল মাদবর। তবে নির্বাচনের পর থেকেই কুদ্দুস ও জলিলের মধ্যে আধিপত্য বিস্তার নিয়ে বিরোধ শুরু হয়। স্থানীয়ভাবে দুটি গ্রুপ বোমা বানালেও জাজিরা থানা ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনী চোখে পড়ার মতো অভিযান চালায় না। জাজিরা থানা সূত্রে জানা যায়, গত পাঁচ বছরে কুদ্দুস ও জলিলের সমর্থকদের মধ্যে অন্তত ২০০টি সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে।